বাহাই ধর্ম

বাহাই ধর্মকে অনেকে ইসলাম ধর্মের শাখা বলে মনে করেন। ওরা কুরআনকে আল্লাহর বাণী বলে মেনে নেয়, মুহাম্মদকে রাসূল বলে মেনে নেয়। বিভিন্ন ধর্মের মহাপুরুষদের এই ধর্মের অনুসারীরা মেনে নেয়। ইব্রাহিম, মূসা, ঈসা, বুদ্ধ, জরুথ্রুষ্ট এদের সবাইকে নবী বলে স্বীকার করে। এবং সবাই স্রষ্টার নির্দেশ অনুযায়ী ধারাবাহিকভাবে কাজ করেছেন। ওরা নিজেদেরকে এমন মানুষ বলে মনে করে যারা পৃথিবীর একতা এবং ছন্দ রক্ষা করতে এসেছে। উপাসনা করে, রোজা/উপবাস করে, ধ্যান করে।

মৌলিক কিছু বাহাই বিশ্বাস বা, সামাজিক রীতি

এই ধর্মের প্রচারক আব্দুল বাহাহ বিভিন্ন সময়ে ইউরোপে ভাষণ দেয়ার সময় এই ধরণের কিছু বিশ্বাসের কথা বলেছেন-

  • ঈশ্বরের একত্ববাদ
  • ধর্মের একতা
  • মানুষদের একতা
  • পুরুষ এবং নারীদের মধ্যে সমতা
  • সব ধরণের অন্ধবিশ্বাস থেকে দূরে থাকা
  • বিশ্বশান্তি এবং নতুন বিশ্বব্যবস্থা
  • ধর্ম এবং বিজ্ঞানের মিলন
  • স্বাধীনভাবে সত্য সন্ধান
  • সবার জন্য শিক্ষা
  • সবার জন্য একটি কমন দ্বিতীয় ভাষা
  • সরকারের প্রতি আনুগত্য
  • চরম দারিদ্র্য এবং প্রচুর সম্পদশালী অবস্থা দূর করা
  • দাসত্বের অবসান ঘটানো

১৮৫২ সালে বাহাউল্লাহ জেলে বসে এই ধর্মের নির্দেশ পান। তিনি নিজেকে ঈশ্বরের অলঙ্কার(বাহাউল্লাহ) নামে ডাকতেন

এরা  নিজেদের স্বাধীন (নতুন) ধর্মমতের অনুসারী বলে দাবি করেন। যদিও এদের ধর্মের সাথে ইসলামের বিশ্বাসের অনেক মিল রয়েছে

এই ধর্মে ডাক্তারের নির্দেষ না থাকলে,  মদ খাওয়া নিষিদ্ধ। পাশাপাশি নেশাজাতীয় দ্রব্যগুলো সবই নিষিদ্ধ। এটি সবচেয়ে নতুন ধর্মমতগুলোর একটি যা বেশ জনপ্রিয়। তাদের ধর্মগ্রন্থের নাম কিতাব-ই-আকদাস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *